®®ধর্ম কী?

উত্তরঃ- শব্দগত অর্থে ‘ধর্ম’ শব্দটি সংস্কৃত ‘ধৃ’ ধাতু থেকে নেয়া হয়েছে, যার অর্থ ধারণ করা। সুতরাং শব্দগত অর্থে বলা যায় যে, জীবনকে যা ধারণ করে তাই ধর্ম। সাধারণত ব্যক্তিগত জীবনের এবং জাতীয় জীবনে যা যথার্থ সংহতি আনে তাই ধর্ম। আর ধর্মের কাজ সত্য ও সুন্দরকে নিয়ে, ধর্মবোধ মানুষের নীতিবোধকে উন্নত করে আবার উন্নত নীতিবোধ ধর্মবোধের অগ্রগতিকে সহায়তা করে এবং ধর্ম হল এক ধরনের বিশ্বাস। ধর্ম বলতে আমরা কোন এক বিশেষ ধর্মকে বুঝি না। ধর্ম বলতে আমরা বুঝি-কোন অতিপ্রাকৃত সত্তায় মানুষের বিশ্বাস, যে তার জীবনের সকল মূল অনুভূতিকে এবং ক্রিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করে। (ধর্মদর্শন)54651-brahma-3-5-16

Advertisements

♦♦♦♦দীপাবলি কী তা সম্পকে:

দীপাবলি বা দেওয়ালি[১] হল একটি পাঁচ দিন-ব্যাপীহিন্দু উৎসব[২] আশ্বিন মাসের কৃষ্ণা ত্রয়োদশীর দিন ধনতেরাস অথবা ধনত্রয়োদশী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দীপাবলি উৎসবের সূচনা হয়। কার্তিক মাসের শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতে ভাইফোঁটা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই উৎসব শেষ হয়। নবরাত্রি উৎসব অথবা বাঙালিদেরদুর্গোৎসব শেষ হওয়ার ১৮ দিন পর দীপাবলি শুরু হয়। গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসারে, মধ্য-অক্টোবর থেকে মধ্য-নভেম্বরের মধ্যে দীপাবলি অনুষ্ঠিত হয়।

দীপাবলি
The Rangoli of Lights.jpg

উত্তর ভারতে দীপাবলি উপলক্ষে রঙিন গুঁড়ো দিয়ে দেওয়া রঙ্গোলি আলপনা
এছাড়াও বলা হয় দেওয়ালি, আলোর উৎসব, দীপোত্সব, দীপান্বিতা, আলোকোত্সব
পালনকারী হিন্দু, শিখজৈন (বিশ্বজনীন); ভারত,নেপাল, শ্রীলঙ্কা, মায়ানমার, মরিশাস,গুয়ানা, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো, সুরিনাম,মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুরফিজি (জাতীয় ছুটি)
ধরন ধর্মীয়
উদযাপন প্রদীপ ও মোমবাতি দিয়ে বাড়ি সাজানো, আতসবাজি, মিষ্টি ও উপহার বিতরণ ,
পালন প্রার্থনা ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান
শুরু ধনতেরাস/ধনত্রয়োদশী
সমাপ্তি ভাইফোঁটা
তারিখ হিন্দু পঞ্জিকা অনুসারে নির্ধারিত হয়

দীপাবলির রাতে প্রদীপসজ্জা

দীপাবলির রাতে আলোকমালার প্রতিবিম্ব

দীপাবলি ভারত,[৩] নেপাল, শ্রীলঙ্কা, মায়ানমার, মরিশাস, গুয়ানা, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো, সুরিনাম, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ফিজিতে একটি সরকারি ছুটির দিন।

হিন্দুদের কাছে, দীপাবলি একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎসব। এই দিন সব হিন্দুরা বাড়িতে নানা ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। বাংলা, আসাম, ওড়িশা ও মিথিলাতে এই দিনটি কালীপূজা হিসেবে উদযাপন করা হয়। ভারতীয় সমাজের দৃঢ় বিশ্বাস ‘দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালন’ বা ‘ন্যায়ের কাছে অন্যায়ের পরাজয়’ এই নীতিতে। দীপাবলির মাধ্যমে উপনিষদের আজ্ঞায় এই কথাটা খুবই সদৃঢ় ভাবে চরিতার্থ হয়ে ওঠে যথা “অসতো মা সৎ গময়। তমসো মা জ্যোতির্গময়। মৃত্যোর্মা অমৃতং গময়। ওঁ শান্তিঃ॥ ওঁ শান্তিঃ॥ ওঁ শান্তিঃ॥” অর্থাৎ “অসৎ হইতে সত্যে লইয়া যাও, অন্ধকার হইতে জ্যোতিতে লইয়া যাও, মৃত্যু হইতে অমরত্বে লইয়া যাও। সর্বত্র যেন ছড়াইয়া পড়ুক শান্তির বার্তা॥” উত্তর ভারতীয় হিন্দুদের মতে দীপাবলির দিনেই শ্রীরামচন্দ্র চৌদ্দ বছরের নির্বাসনের পর অযোধ্যা ফেরেন। নিজের পরমপ্রিয় রাজাকে ফিরে পেয়ে অযোধ্যাবাসীরা ঘিয়ের প্রদীপ জ্বেলে সাজিয়ে তোলেন তাঁদের রাজধানীটাকে। এই দিনটিতে পূর্বভারত বাদে সম্পূর্ণ ভারতবর্ষে লক্ষ্মী-গণেশের পুজোর নিয়ম আছে। জৈন মতে, ৫২৭ খ্রিস্ট পূর্বাব্দেমহাবীর দীপাবলির দিনেই মোক্ষ বা নির্বাণ লাভ করেছিলেন।[৪][৫] ১৬১৯ খ্রিস্টাব্দে শিখদের ষষ্ঠ গুরু হরগোবিন্দ ও ৫২ জন রাজপুত্র দীপাবলির দিন মুক্তি পেয়েছিলেন বলে শিখরাও এই উৎসব পালন করেন।[৬] আর্য সমাজ এই দিনে স্বামী দয়ানন্দ সরস্বতীর মৃত্যুদিন পালন করে। তারা এই দিনটি “শারদীয়া নব-শস্যেষ্টি” হিসেবেও পালন করেন।

“দীপাবলি” নামটির অর্থ “প্রদীপের সমষ্টি”।[৭] এই দিন হিন্দুরা ঘরে ঘরে ছোটো মাটির প্রদীপ জ্বালেন। এই প্রদীপ জ্বালানো অমঙ্গল বিতাড়নের প্রতীক।[৮]বাড়িঘর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে সারা রাত প্রদীপ জ্বালিয়ে রাখলে ঘরে লক্ষ্মী আসেন বলে উত্তর ভারতীয় হিন্দুরা বিশ্বাস করেন। বাংলার দীপান্বিতা কালীপূজা বিশেষ জনপ্রিয়। এই উৎসব সাড়ম্বরে আলোকসজ্জা সহকারে পালিত হয়। তবে এই পূজা প্রাচীন নয়। ১৭৭৭ খ্রিস্টাব্দে কাশীনাথ রচিত শ্যামাসপর্যাবিধিগ্রন্থে এই পূজার সর্বপ্রথম উল্লেখ পাওয়া যায়। কথিত আছে, নদিয়ার রাজা কৃষ্ণচন্দ্র রায় অষ্টাদশ শতকে তাঁর সকল প্রজাকে শাস্তির ভীতিপ্রদর্শন করে কালীপূজা করতে বাধ্য করেন। সেই থেকে নদিয়ায় কালীপূজা বিশেষ জনপ্রিয়তা লাভ করে। কৃষ্ণচন্দ্রের পৌত্র ঈশানচন্দ্রও বহু অর্থব্যয় করে কালীপূজার আয়োজন করতেন। অমঙ্গল বিতাড়নের জন্য আতসবাজিও পোড়ানো হয়।[৯][১০][১১] বিশেষত উত্তর ভারতে দীপাবলির সময় নতুন পোশাক পড়া, পরিবার ও বন্ধুবান্ধবদের মধ্যে মিষ্টি বিতরণের প্রথাও আছে।

ধনতেরাসের দিন অনেক ভারতীয় ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের অর্থবর্ষের সূচনা হয়; লোকজন নতুন বর্তন, বাসন, গয়না প্রভৃতিও কিনে থাকেন এই দিনে। তবে বেশির ভাগ বাঙালি ব্যবসায়ীদের অর্থবর্ষের সূচনা হয় পয়লা বৈশাখে। দ্বিতীয় দিনটিকে বলে ভূত চতুর্দশী। এই দিনে বাঙালিরা বাড়ির চোদ্দোটা এঁদো কোণায় চোদ্দোটা প্রদীপ জ্বালিয়ে কালো মুছিয়ে আলোকিত করে তোলেন বাড়িটাকে। কথায় আছে যে এমনটা করলে ভূতপ্রেত পরিবার আর স্বজনদের ঘাড়ের কাছে নড়তে পারে না; এমনটাও লোককথায় শোনা যায় যে এই প্রদীপসজ্জার মাধ্যমে পরিবারের পিতৃপুরুষদের অনুষ্ঠানে পদার্পণ করার জন্য নিমন্ত্রণ পাঠানো হয়, যাতে তাঁরা মায়ের বাৎসরিক আগমনে উপস্থিত হয়ে সবাইকে শুভাশীষ দিয়ে নিজেরা মায়ের আশীর্ব্বাদে মোক্ষ লাভ করবেন। তৃতীয় দিন কার্তিক অমাবস্যায় যেখানে উত্তর ভারতে লক্ষ্মীর পূজা চলছে,পশ্চিমবঙ্গে দারুণ জাঁকজমকে ঘটা করে পালন করা হয় কালীপূজা। অবশ্য সেদিন আদি পশ্চিমবঙ্গ বাসিন্দারা, ঘটিরা, বাড়িতে লক্ষ্মীর পূজাও করে থাকেন। তবে আদি বাংলাদেশি হিন্দুদের, বাঙালদের, এই নিয়ম নেই; তা অনেকে বাড়িতেও কালী পুজো করেন, যদিও এই পুজোর বারোয়ারি ভাবে পালন হওয়ার প্রচলন বেশি। কদাচিৎ কালীপুজোর দিন আর দেওয়ালির দিন পৃথকও হতে পারে; দেওয়ালির তারিখটা একদিন পরে কিংবা আগেও পড়া সম্ভব। কেননা কালীপূজার লগ্ন অমাবস্যার মাঝরাত্রিতে ঠিক হয়, আবার দীপাবলির লক্ষ্মী পূজার লগ্ন নিশ্চিত করা হয় অমাবস্যার সন্ধ্যেতে, তাই পুজোর লগ্ন অনুযায়ী দুই পুজোর তারিখে মাঝে মাঝে অন্তর ঘটে থাকে। দেওয়ালির দিনে প্রদীপের আলোয় বাড়ি-বাড়ি ঝকমক করে ওঠে। নানান রঙের বাজিতে আকাশটাও রীতিমত চকচক করে থাকে। দীপাবলি সারি-সারি প্রদীপের আলোকে স্বর্গের দেবতাকে মর্তের কুটিরে বরণ করে নেবার উৎসব। চতুর্থ দিন কার্তিক শুক্লা প্রতিপদ। এই দিন বৈষ্ণবেরা গোবর্ধন পূজা করেন। পঞ্চম দিন যমদ্বিতীয়া বা ভ্রাতৃদ্বিতীয়া বা ভাইফোঁটা। এই দিন বোনেরা তাদের ভাইদের জন্যে উপোস করে তাদের বাড়িতে নিমন্ত্রণ করে।

♦♦♦কালী কালী মহাকালী ঃ

কালী বা কালিকা হলেন একজন হিন্দু দেবী। তাঁর অন্য নাম শ্যামা বা আদ্যাশক্তি। প্রধানত শাক্তসম্প্রদায় কালীপূজা করে থাকে। তন্ত্র অনুসারে, কালীদশমহাবিদ্যা নামে পরিচিত দশজন প্রধান তান্ত্রিক দেবীর প্রথম। শাক্ত মতে, কালী বিশ্বব্রহ্মাণ্ড সৃষ্টির আদি কারণ। বাঙালি হিন্দু সমাজে কালীর মাতৃরূপের পূজা বিশেষ জনপ্রিয়।

কালী
বঙ্গদেশ, কাল (সৃষ্টি, পরিবর্তন, স্থিতি, ধ্বংস) ও শক্তির দেবী
Kali on durga puja.jpg

দেবী কালীর একটি প্রসন্ন প্রতিমা
অন্তর্ভুক্তি হিন্দু দেবী , মহাবিদ্যা , মাতৃকা, মহাশক্তি
আবাস শ্মশান
মন্ত্র ক্রীঁ ক্রীঁ ক্রীঁ হূঁ হূঁ হ্রীঁ হ্রীঁ দক্ষিণে কালিকে ক্রীঁ ক্রীঁ ক্রীঁ হূঁ হূঁ হ্রীঁ হ্রীঁ স্বাহা,
ক্রীঁ,
হ্রীঁ,
ওঁ হ্রীঁ হ্রীঁ হূঁ হূঁ ক্রীঁ ক্রীঁ ক্রীঁ দক্ষিণে কালিকে ক্রীঁ ক্রীঁ ক্রীঁ হূঁ হূঁ হ্রীঁ হ্রীঁ,
ক্রীঁ ক্রীঁ ক্রীঁ স্বাহা
ক্রীঁ ক্রীঁ ক্রীঁ ফট্‌ স্বাহা,
ক্রীঁ ক্রীঁ ক্রীঁ হূঁ হ্রীঁ ক্রীঁ ক্রীঁ ক্রীঁ হূঁ হ্রীঁ স্বাহা,
ঐঁ নমঃ ক্রীঁ ঐঁ নমঃ ক্রীঁ কালিকায়ৈ স্বাহা,
ক্রীঁ ক্রীঁ হ্রীঁ হ্রীঁ দক্ষিণকালিকে স্বাহা।
গায়ত্রীːওঁ কালিকায়ৈ বিদ্মহে শ্মশানবাসিন্যৈ ধীমহি। তন্নো ঘোরে প্রচোদয়াৎ ওঁ।[১]
অস্ত্র খড়্গ
সঙ্গী শিব
বাহন শৃগাল (‘শিবা’)

পুরাণ ও তন্ত্র সাহিত্যে কালীর বিভিন্ন রূপের বর্ণনা পাওয়া যায়। এগুলি হল: দক্ষিণাকালী, ভদ্রকালী,সিদ্ধকালী, গুহ্যকালী, শ্মশানকালী, মহাকালী,রক্ষাকালী ইত্যাদি।[২] আবার বিভিন্ন মন্দিরে “ব্রহ্মময়ী”, “ভবতারিণী”, “আনন্দময়ী”, “করুণাময়ী” ইত্যাদি নামে কালীপ্রতিমা পূজা করা হয়।[৩] এই সব রূপের মধ্যে দক্ষিণাকালীর বিগ্রহই সর্বাধিক পরিচিত ও পূজিত। দক্ষিণাকালী চতুর্ভূজা। তাঁর চার হাতে খড়্গ, অসুরের ছিন্ন মুণ্ড, বর ও অভয়মুদ্রা রয়েছে। তাঁর গলায় রয়েছে নরমুণ্ডের মালা। দেবীর গায়ের রং কালো। মাথায় আলুলায়িত চুল এবং তিনি শিবের বুকে ডান পা আগে রেখে দণ্ডায়মান।

ব্রহ্মযামল নামক তন্ত্রগ্রন্থের মতে, কালী বঙ্গদেশেরঅধিষ্ঠাত্রী দেবী।[৪] আশ্বিন মাসের অমাবস্যা তিথিতেদীপান্বিতা কালীপূজা বিশেষ জাঁকজমক সহকারে পালিত হয়। এছাড়া মাঘ মাসের চতুর্দশী তিথিতে রটন্তী কালীপূজা[৫]জ্যৈষ্ঠ মাসে ফলহারিণী কালীপূজাও বিশেষ জনপ্রিয়। অনেক জায়গায় প্রতি অমাবস্যা এবং প্রতি মঙ্গলবারশনিবারে কালীপূজা হয়ে থাকে।

কালী দেবীর উপাসকরা হিন্দু বাঙালি সমাজে বিশেষ সম্মান পেয়ে থাকেন। এঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেনরামকৃষ্ণ পরমহংস ও তাঁর শিষ্য স্বামী বিবেকানন্দ,রামপ্রসাদ সেন, কমলাকান্ত ভট্টাচার্য প্রমুখ। কালীকে বিষয়বস্তু করে রচিত ‘শ্যামাসংগীত’ বাংলা সাহিত্য ও সংগীত ধারার একটি গুরুত্বপূর্ণ বর্গ। রামপ্রসাদ সেন, কমলাকান্ত ভট্টাচার্য প্রমুখ কালী সাধকেরা এবংকাজী নজরুল ইসলাম, দ্বিজেন্দ্রলাল রায় প্রমুখ বিশিষ্ট কবিরা অনেক উৎকৃষ্ট শ্যামাসংগীত লিখেছেন। স্বামী বিবেকানন্দ ‘মৃত্যুরূপা কালী’ নামে একটি দীর্ঘকবিতা এবং তাঁর শিষ্যা ভগিনী নিবেদিতামাতৃরূপা কালী নামে একটি প্রবন্ধ গ্রন্থ রচনা করেছিলেন।

পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতায় অনেক কালীমন্দির আছে। তাই ভারতের অন্যান্য অঞ্চলে কালীকে “কলকাত্তাওয়ালি” (কলকাতানিবাসিনী) বলা হয়। কলকাতার সবচেয়ে বিখ্যাত কালীমন্দিরটি হলকালীঘাট মন্দির। এটি একটি সতীপীঠ। এছাড়াদক্ষিণেশ্বর কালীবাড়ি, আদ্যাপীঠ, ঠনঠনিয়া কালীবাড়ি, ফিরিঙ্গি কালীবাড়ি ইত্যাদি কলকাতা অঞ্চলের বিখ্যাত কয়েকটি কালী মন্দির। এছাড়ালালনার সিদ্ধেশ্বরী কালীবাড়ি, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনারময়দা কালীবাড়ি, উত্তর চব্বিশ পরগনার হালিশহরেররামপ্রসাদী কালী মন্দির ইত্যাদি পশ্চিমবঙ্গের বিখ্যাত কয়েকটি কালীমন্দির। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাশহরের অধুনা ধ্বংসপ্রাপ্ত রমনা কালীমন্দির ছিল খুবই প্রাচীন একটি কালীমন্দির। ভারতের রাজধানীনতুন দিল্লির নতুন দিল্লি কালীবাড়ি একটি ঐতিহ্যপূর্ণ কালীমন্দির।

নাম-ব্যুৎপত্তিসম্পাদনা

কালী, ১৭৭০।

‘কালী’ শব্দটি ‘কাল’ শব্দের স্ত্রীলিঙ্গ। এই শব্দের অর্থ ‘কৃষ্ণ’ (কালো) বা ‘ঘোর বর্ণ’।[৬] হিন্দু মহাকাব্যমহাভারত-এ যে ভদ্রকালীর উল্লেখ আছে, তা দেবীদুর্গারই একটি রূপ।[৭] মহাভারত-এ ‘কালরাত্রি’ বা ‘কালী’ নামে আরও এক দেবীর উল্লেখ পাওয়া যায়। ইনি যুদ্ধে নিহত যোদ্ধৃবর্গ ও পশুদের আত্মা বহন করেন। আবার হরিবংশ গ্রন্থে কালী নামে এক দানবীর উল্লেখ পাওয়া যায়।[৮]

‘কাল’ শব্দের দুটি অর্থ রয়েছে: ‘নির্ধারিত সময়’ ও ‘মৃত্যু’। কিন্তু দেবী প্রসঙ্গে এই শব্দের মানে “সময়ের থেকে উচ্চতর”। সমোচ্চারিত শব্দ ‘কালো’র সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক না থাকলেও, সংস্কৃত সাহিত্যের বিশিষ্ট গবেষক টমাস কবার্নের মতে, ‘কালী’ শব্দটি ‘কৃষ্ণবর্ণ’ বোঝানোর জন্যও ব্যবহৃত হতে পারে।[৯]

রূপভেদসম্পাদনা

তন্ত্র পুরাণে দেবী কালীর একাধিক রূপভেদের উল্লেখ পাওয়া যায়। তোড়লতন্ত্র অনুসারে, কালী আট প্রকার। যথা: দক্ষিণকালিকা, সিদ্ধকালিকা, গুহ্যকালিকা,শ্রীকালিকা, ভদ্রকালী, চামুণ্ডাকালিকা, শ্মশানকালিকামহাকালী[১০] মহাকাল সংহিতার অনুস্মৃতিপ্রকরণে নয় প্রকার কালীর উল্লেখ পাওয়া যায়। যথা: দক্ষিণাকালী, ভদ্রকালী, শ্মশানকালী, কালকালী, গুহ্যকালী, কামকলাকালী, ধণকালিকা, সিদ্ধিকালী, সিদ্ধিকালী, চণ্ডিকালিকা।[১০] অভিনব গুপ্তেরতন্ত্রালোকতন্ত্রসার গ্রন্থদ্বয়ে কালীর ১৩টি রূপের উল্লেখ আছে। যথা: সৃষ্টিকালী, স্থিতিকালী, সংহারকালী, রক্তকালী, যমকালী, মৃত্যুকালী, রুদ্রকালী, পরমার্ককালী, মার্তণ্ডকালী, কালাগ্নিরুদ্রকালী, মহাকালী, মহাভৈরবঘোর ও চণ্ডকালী।[১০] জয়দ্রথ যামল গ্রন্থে কালীর যে রূপগুলির নাম পাওয়া যায়, সেগুলি হল: ডম্বরকালী, রক্ষাকালী, ইন্দীবরকালিকা, ধনদকালিকা, রমণীকালিকা, ঈশানকালিকা, জীবকালী, বীর্যকালী, প্রজ্ঞাকালী ও সপ্তার্নকালী।[১১]

অষ্টধা কালীসম্পাদনা

দক্ষিণাকালীসম্পাদনা

দক্ষিণাকালীর কালীর সর্বাপেক্ষা প্রসিদ্ধ মূর্তি। ইনি প্রচলিত ভাষায় শ্যামাকালী নামে আখ্যাতা। দক্ষিণাকালী করালবদনা, ঘোরা, মুক্তকেশী, চতুর্ভূজা এবং মুণ্ডমালাবিভূষিতা। তাঁর বামকরযুগলে সদ্যছিন্ন নরমুণ্ড ও খড়্গ; দক্ষিণকরযুলে বর ও অভয় মুদ্রা। তাঁর গাত্রবর্ণ মহামেঘের ন্যায়; তিনি দিগম্বরী। তাঁর গলায় মুণ্ডমালার হার; কর্ণে দুই ভয়ানক শবরূপী কর্ণাবতংস; কটিদেশে নরহস্তের কটিবাস। তাঁর দন্ত ভয়ানক; তাঁর স্তনযুগল উন্নত; তিনি ত্রিনয়নী এবং মহাদেব শিবের বুকে দণ্ডায়মান। তাঁর দক্ষিণপদ শিবের বক্ষে স্থাপিত। তিনি মহাভীমা, হাস্যযুক্তা ও মুহুর্মুহু রক্তপানকারিনী।[১২]

তাত্ত্বিকের তাঁর নামের যে ব্যাখ্যা দেন তা নিম্নরূপ: দক্ষিণদিকের অধিপতি যম যে কালীর ভয়ে পলায়ন করেন, তাঁর নাম দক্ষিণাকালী। তাঁর পূজা করলে ত্রিবর্ণা তো বটেই সর্বোপরি সর্বশ্রেষ্ঠ ফলও দক্ষিণাস্বরূপ পাওয়া যায়।[১৩]

সিদ্ধকালীসম্পাদনা

সিদ্ধকালী কালীর একটি অখ্যাত রূপ। গৃহস্থের বাড়িতে সিদ্ধকালীর পূজা হয় না; তিনি মূলত সিদ্ধ সাধকদের ধ্যান আরাধ্যা। কালীতন্ত্র-এ তাঁকে দ্বিভূজা রূপে কল্পনা করা হয়েছে। অন্যত্র তিনি ব্রহ্মরূপাভুবনেশ্বরী। তাঁর মূর্তিটি নিম্নরূপ: দক্ষিণহস্তে ধৃত খড়্গের আঘাতে চন্দ্রমণ্ডল থেকে নিঃসৃত অমৃত রসে প্লাবিত হয়ে বামহস্তে ধৃত একটি কপালপাত্রে সেই অমৃত ধারণ করে পরমানন্দে পানরতা। তিনি সালংকারা। তাঁর বামপদ শিবের বুকে ও বামপদ শিবের উরুদ্বয়ের মধ্যস্থলে সংস্থাপিত।[১৩]

গুহ্যকালীসম্পাদনা

গুহ্যকালী বা আকালী, দক্ষিণ কলকাতার একটি কালীপূজা মণ্ডপে, ২০০৮

গুহ্যকালী বা আকালীর রূপ গৃহস্থের নিকট অপ্রকাশ্য। তিনি সাধকদের আরাধ্য। তাঁর রূপকল্প ভয়ংকর: গুহ্যকালীর গাত্রবর্ণ গাঢ় মেঘের ন্যায়; তিনি লোলজিহ্বা ও দ্বিভূজা; গলায় পঞ্চাশটি নরমুণ্ডের মালা; কটিতে ক্ষুদ্র কৃষ্ণবস্ত্র; স্কন্ধে নাগযজ্ঞোপবীত; মস্তকে জটা ও অর্ধচন্দ্র; কর্ণে শবদেহরূপী অলংকার; হাস্যযুক্তা, চতুর্দিকে নাগফণা দ্বারা বেষ্টিতা ও নাগাসনে উপবিষ্টা; বামকঙ্কণে তক্ষক সর্পরাজ ও দক্ষিণকঙ্কণে অনন্ত নাগরাজ; বামে বৎসরূপী শিব; তিনি নবরত্নভূষিতা; নারদাদিঋষিগণ শিবমোহিনী গুহ্যকালীর সেবা করেন; তিনি অট্টহাস্যকারিণী, মহাভীমা ও সাধকের অভিষ্ট ফলপ্রদায়িনী। গুহ্যকালী নিয়মিত শবমাংস ভক্ষণে অভ্যস্তা।[১৪]

মুর্শিদাবাদবীরভূম সীমান্তবর্তী আকালীপুর গ্রামেমহারাজা নন্দকুমার প্রতিষ্ঠিত গুহ্যকালীর মন্দিরের কথা জানা যায়। মহাকাল সংহিতা মতে, নববিধা কালীর মধ্যে গুহ্যকালীই সর্বপ্রধানা। তাঁর মন্ত্র বহু – প্রায় আঠারো প্রকারের।[১৩]

মহাকালীসম্পাদনা

তন্ত্রসার গ্রন্থমতে, মহাকালী পঞ্চবক্ত্রা ও পঞ্চদশনয়না। তবে শ্রীশ্রীচণ্ডী-তে তাঁকে আদ্যাশক্তি, দশবক্ত্রা, দশভূজা, দশপাদা ও ত্রিংশল্লোচনা রূপে কল্পনা করা হয়েছে। তাঁর দশ হাতে রয়েছে যথাক্রমে খড়্গ,চক্র,গদা,ধনুক,বাণ,পরিঘ,শূল,ভূসুণ্ডি,নরমুণ্ড ও শঙ্খ। ইনিও ভৈরবী; তবে গুহ্যকালীর সঙ্গে এঁর পার্থক্য রয়েছে। ইনি সাধনপর্বে ভক্তকে উৎকট ভীতি প্রদর্শন করলেও অন্তে তাঁকে রূপ, সৌভাগ্য, কান্তি ও শ্রী প্রদান করেন।

মার্কণ্ডেয় চণ্ডীর প্রথম চরিত্র শ্রী শ্রী মহাকালীর ধ্যানমন্ত্র এইরূপ

ওঁ খড়্গং চক্রগদেষুচাপপরিঘান শূলং ভুসূণ্ডিং শিরঃ| শঙ্খং সন্দধতীং করৈস্ত্রিনয়নাং সর্বাঙ্গভূষাবৃতাম্ || নীলাশ্মদ্যুতিমাস্যপাদদশকাং সেবে মহাকালিকাম্ | যামস্তৌচ্ছয়িতে হরৌ কমলজো হন্তুং মধুং কৈটভম্ ||

[১৩]

ভদ্রকালীসম্পাদনা

ভদ্রকালী, ১৬৭৫ খ্রিস্টাব্দ।
চিত্রকলা; বাসোহলি, হিমাচল প্রদেশ, ভারত,
বর্তমানে এলএসিএমএ-তে রক্ষিত

ভদ্রকালী নামের ভদ্র শব্দের অর্থ কল্যাণ এবং কাল শব্দের অর্থ শেষ সময়। যিনি মরণকালে জীবের মঙ্গলবিধান করেন, তিনিই ভদ্রকালী। ভদ্রকালী নামটি অবশ্য শাস্ত্রে দুর্গাসরস্বতী দেবীর অপর নাম রূপেও ব্যবহৃত হয়েছে। কালিকাপুরাণ মতে, ভদ্রকালীর গাত্রবর্ণ অতসীপুষ্পের ন্যায়, মাথায় জটাজুট, ললাটে অর্ধচন্দ্র ও গলদেশে কণ্ঠহার। তন্ত্রমতে অবশ্য তিনি মসীর ন্যায় কৃষ্ণবর্ণা, কোটরাক্ষী, সর্বদা ক্ষুধিতা, মুক্তকেশী; তিনি জগৎকে গ্রাস করছেন; তাঁর হাতে জ্বলন্ত অগ্নিশিখা ও পাশযুগ্ম।

গ্রামবাংলায় অনেক স্থলে ভদ্রকালীর বিগ্রহ নিষ্ঠাসহকারে পূজিত হয়। এই দেবীরও একাধিক মন্ত্র রয়েছে। তবে প্রসিদ্ধ চতুর্দশাক্ষর মন্ত্রটি হল – ‘হৌঁ কালি মহাকালী কিলি কিলি ফট স্বাহা’।[১৩]

চামুণ্ডাকালীসম্পাদনা

চামুণ্ডা কালী, দক্ষিণ কলকাতার আলিপুর-চেতলা অঞ্চলের আলিপুর সাধারণ সমিতির মণ্ডপে, ২০০৮।

চামুণ্ডাকালী বা চামুণ্ডা ভক্ত ও সাধকদের কাছে কালীর একটি প্রসিদ্ধ রূপ। দেবীভাগবত পুরাণমার্কণ্ডেয় পুরাণ-এর বর্ণনা অনুযায়ী, চামুণ্ডা চণ্ড ও মুণ্ড নামক দুই অসুর বধের নিমিত্ত দেবী দুর্গারভ্রুকুটিকুটিল ললাট থেকে উৎপন্ন হন। তাঁর গাত্রবর্ণ নীল পদ্মের ন্যায়, হস্তে অস্ত্র, দণ্ড ও চন্দ্রহাস; পরিধানে ব্যাঘ্রচর্ম; অস্তিচর্মসার শরীর ও বিকট দাঁত। দুর্গাপূজায়মহাষ্টমীমহানবমীর সন্ধিক্ষণে আয়োজিতসন্ধিপূজার সময় দেবী চামুণ্ডার পূজা হয়। পূজক অশুভ শত্রুবিনাশের জন্য শক্তি প্রার্থনা করে তাঁর পূজা করেন। অগ্নিপুরাণ-এ আট প্রকার চামুণ্ডার কথা বলা হয়েছে। তাঁর মন্ত্রও অনেক। বৃহন্নন্দীকেশ্বর পুরাণে বর্ণিত চামুণ্ডা দেবীর ধ্যানমন্ত্রটি এইরূপ – নীলোৎপলদলশ্যামা চতুর্বাহুসমন্বিতা । খট্বাঙ্গ চন্দ্রহাসঞ্চ বিভ্রতী দক্ষিণে করে ।। বামে চর্ম্ম চ পাশঞ্চ ঊর্দ্ধাধোভাগতঃ পুনঃ । দধতী মুণ্ডমালাঞ্চ ব্যাঘ্রচর্মধরাম্বরা ।। কৃশোদরী দীর্ঘদংষ্ট্রা অতিদীর্ঘাতিভীষণা । লোলজিহ্বা নিমগ্নারক্তনয়নারাবভীষণা ।। কবন্ধবাহনাসীনা বিস্তারা শ্রবণাননা । এষা কালী সমাখ্যাতা চামুণ্ডা ইতি কথ্যতে ।।[১৩]

শ্মশানকালীসম্পাদনা

কালীর “শ্মশানকালী” রূপটির পূজা সাধারণতশ্মশানঘাটে হয়ে থাকে। এই দেবীকে শ্মশানের অধিষ্ঠাত্রী দেবী মনে করা হয়। তন্ত্রসাধক কৃষ্ণানন্দ আগমবাগীশ রচিত বৃহৎ তন্ত্রসার অনুসারে এই দেবীর ধ্যানসম্মত মূর্তিটি নিম্নরূপ:[১৫]

শ্মশানকালী দেবীর গায়ের রং কাজলের মতো কালো। তিনি সর্বদা বাস করেন। তাঁর চোখদুটি রক্তপিঙ্গল বর্ণের। চুলগুলি আলুলায়িত, দেহটি শুকনো ও ভয়ংকর, বাঁ-হাতে মদ ও মাংসে ভরা পানপাত্র, ডান হাতে সদ্য কাটা মানুষের মাথা। দেবী হাস্যমুখে আমমাংস খাচ্ছেন। তাঁর গায়ে নানারকম অলংকার থাকলেও, তিনি উলঙ্গ এবং মদ্যপান করে উন্মত্ত হয়ে উঠেছেন।

শ্মশানকালীর আরেকটি রূপে তাঁর বাঁ-পাটি শিবের বুকে স্থাপিত এবং ডান হাতে ধরা খড়্গ। এই রূপটিও ভয়ংকর রূপ। তন্ত্রসাধকেরা মনে করেন, শ্মশানে শ্মশানকালীর পূজা করলে শীঘ্র সিদ্ধ হওয়া যায়।রামকৃষ্ণ পরমহংসের স্ত্রী সারদা দেবী দক্ষিণেশ্বরেশ্মশানকালীর পূজা করেছিলেন।[১৬]

কাপালিকরা শবসাধনার সময় কালীর শ্মশানকালী রূপটির ধ্যান করতেন। সেকালের ডাকাতেরা ডাকাতি করতে যাবার আগে শ্মশানঘাটে নরবলি দিয়ে শ্মশানকালীর পূজা করতেন। পশ্চিমবঙ্গের অনেক প্রাচীন শ্মশানঘাটে এখনও শ্মশানকালীর পূজা হয়। তবে গৃহস্থবাড়িতে বা পাড়ায় সর্বজনীনভাবে শ্মশানকালীর পূজা হয় না। রামকৃষ্ণ পরমহংসবলেছিলেন, শ্মশানকালীর ছবিও গৃহস্থের বাড়িতে রাখা উচিত নয়।[১৭]

শ্রীকালীসম্পাদনা

গুণ ও কর্ম অনুসারে শ্রীকালী কালীর আরেক রূপ। অনেকের মতে এই রূপে তিনি দারুক নামক অসুর নাশ করেন। ইনি মহাদেবের শরীরে প্রবেশ করে তাঁর কণ্ঠের বিষে কৃষ্ণবর্ণা হয়েছেন। শিবের ন্যায় ইনিও ত্রিশূলধারিনী ও সর্পযুক্তা।

কালীপূজাসম্পাদনা

গৃহে বা মন্দিরে প্রতিষ্ঠিত কালীপ্রতিমার নিত্যপূজা হয়। এছাড়াও বিশেষ বিশেষ তিথিতেও কালীপূজার বিধান আছে। আশ্বিন মাসের অমাবস্যা তিথিতে দীপান্বিতা কালীপূজা, মাঘ মাসের কৃষ্ণা চতুর্দশীতে রটন্তী কালীপূজা এবং জ্যৈষ্ঠ মাসের কৃষ্ণা চতুর্দশীতে ফলহারিনী কালীপূজা বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও শনি ও মঙ্গলবারে, অন্যান্য অমাবস্যায় বা বিশেষ কোনো কামনাপূরণের উদ্দেশ্যেও কালীর পূজা করা হয়। দীপান্বিতা কালীপূজা বিশেষ জনপ্রিয়। এই উৎসব সাড়ম্বরে আলোকসজ্জা সহকারে পালিত হয়। তবে এই পূজা প্রাচীন নয়। ১৭৭৭ খ্রিস্টাব্দে কাশীনাথ রচিত শ্যামাসপর্যাবিধি গ্রন্থে এই পূজার সর্বপ্রথম উল্লেখ পাওয়া যায়।[১৮] কথিত আছে, নদিয়ার রাজাকৃষ্ণচন্দ্র রায় অষ্টাদশ শতকে তাঁর সকল প্রজাকে শাস্তির ভীতিপ্রদর্শন করে কালীপূজা করতে বাধ্য করেন। সেই থেকে নদিয়ায় কালীপূজা বিশেষ জনপ্রিয়তা লাভ করে। কৃষ্ণচন্দ্রের পৌত্র ঈশানচন্দ্রও বহু অর্থব্যয় করে কালীপূজার আয়োজন করতেন।[১৯]

মন্দিরসম্পাদনা

নতুন দিল্লি কালীবাড়িসম্পাদনা

নতুন দিল্লি কালীবাড়ি হল ভারতের রাজধানী নতুন দিল্লি শহরের একটি হিন্দু মন্দির। এটি হিন্দু দেবীকালীর মন্দির এবং দিল্লির বাঙালিদের একটি সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। মন্দিরটি স্থাপিত হয়েছিল ১৯৩০-এর দশকে। এটি মন্দির মার্গে লক্ষ্মীনারায়ণ মন্দিরের(বিড়লা মন্দির) কাছে অবস্থিত। ১৯৩০-এর দশকে দিল্লিতে বাঙালি জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় একটি কালীমন্দির স্থাপনের পরিকল্পনা করা হয়। কালীঘাট মন্দিরের আদলে একটি মন্দির নির্মিত হয়। ১৯৩৫ সালে মন্দির কমিটি গঠিত হয়। সুভাষচন্দ্র বসু ছিলেন এই কমিটির প্রথম সভাপতি।[২০] স্যার মন্মথনাথ মুখোপাধ্যায় প্রথম মন্দির ভবনটি উদ্বোধন করেছিলেন। এই মন্দিরে একটি দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়।

শিল্পী নুরুদ্দিনের হাত ধরে ১০১ ফুটের দুর্গাপ্রতিমা

তরুণ চক্রবর্তী, আগরতলা

বাঁশ দিয়ে তৈরি ১০১ ফুটের দুর্গাপ্রতিমা। ছবি: দেবাশিস রায়শারদীয় দুর্গাপূজার জন্য বাঁশ দিয়ে তৈরি হয়েছে ১০১ ফুট উচ্চতার দুর্গাপ্রতিমা। ভারতের আসাম রাজ্যের গুয়াহাটি শহরের এই দুর্গাপ্রতিমা গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে বিশ্বের উচ্চতম দুর্গাপ্রতিমা হিসেবে স্বীকৃতি পাবে বলে উদ্যোক্তারা আশা করছেন। তবে মূল উদ্দেশ্য হলো, এই বিশাল কাজের মধ্য দিয়ে আসামের বাঁশ-বেতশিল্প সম্পর্কে সবাইকে জানান দেওয়া। আরেকটা ব্যাপার দেখার মতো। আর তা হলো, একজন মুসলমান শিল্পীর নেতৃত্বে গড়ে উঠছে এই বিশালাকার দুর্গাপ্রতিমা।

গুয়াহাটির এই দুর্গাপ্রতিমা তৈরির খবর ভারতসহ বিভিন্ন দেশের গণমাধ্যমে এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। এই মূর্তি গড়ার কাজ শুরু হয়েছিল গত ১ আগস্ট। কাজ চলছিল, তবে ১৭ আগস্ট এক ঝড়ে ভেঙে পড়ে প্রতিমা। তারপর আবার উদ্যোগ নেওয়া হয় প্রতিমা গড়ার।

প্রথমে ঠিক করা হয়েছিল, ১০৮ ফুট উঁচু দুর্গাপ্রতিমা বানিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেবেন গুয়াহাটির লাচিত নগরের বিষ্ণুপুর সর্বজনীন পূজা কমিটির সদস্যরা। কিন্তু সাম্প্রতিক ঝড়ে ক্ষতি হয়ে গিয়েছে মারাত্মক। তাই ১০১ ফুট উঁচু দুর্গাপ্রতিমা বানিয়েছেন তাঁরা। ইতিমধ্যেই উদ্যোক্তারা গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। পুরো প্রতিমা নির্মাণের ভিডিও ধারণসহ প্রতিদিনই তাদের কাছে নানা তথ্য পাঠানো হচ্ছে বলে জানালেন বিষ্ণুপুর সর্বজনীন পূজা কমিটির মুখপাত্র প্রশান্ত বসু।

দুর্গাপূজা শুরুর কদিন আগে গুয়াহাটি থেকে মুঠোফোনে তিনি প্রথম আলোকে বলেন, প্রথম খুঁটি পোঁতা থেকে পুরো কাজটাই গিনেস কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মেনে করা হয়েছে। তারা ২৮ পৃষ্ঠার একটি নির্দেশিকাও পাঠিয়েছে। প্রশান্তের আশা, স্বীকৃতি তাঁরা পাবেনই।

যখন দুর্গা প্রতিমা তৈরির কাজ চলছিল। ছবি: সংগৃহীতআরেকজন উদ্যোক্তা বীরেন সরকার মুঠোফোনে বলেন, ‘বাঁশ আসামের ঐতিহ্য। এই বাঁশ হারিয়ে যেতে বসেছে। বাঁশশিল্পকে শক্তিশালী করে বাঁশকে বাঁচাতে হবে। সেই সচেতনতার বার্তা দিতেই এই উদ্যোগ। সেই সঙ্গে সম্প্রীতির বার্তাও আমরা ছড়িয়ে দিতে চাই।’

ঝড়ের কারণে উচ্চতা ৭ ফুট কমে গেলেও প্রতিমার উচ্চতা হ্রাস পায়নি। জানা গেল, শুরুতে ১০ ফুট উঁচু একটি মঞ্চের ওপর ছিল প্রতিমা। এখন সেই মঞ্চ নেই। ফলে প্রতিমার উচ্চতা কমেনি, বরং ৩ ফুট বেড়েছে। এই মূর্তি গড়া সম্পন্ন হওয়ার আগ থেকেই মানুষের ভিড় দেখা যায়। আসাম রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী হীমন্ত বিশ্বশর্মা পরিদর্শন করেছেন এই প্রতিমা। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, এই প্রতিমার হাত ধরে রাজ্যের পর্যটনশিল্প আরও বিকশিত হবে।

কারুশিল্পী নুরুদ্দিন আহমেদসুবিশাল এই প্রতিমাটি তৈরি করা হচ্ছে শুধুই বাঁশ দিয়ে। আসামের প্রখ্যাত কারুশিল্পী নুরুদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে ৪০ জন কারুশিল্পী দিনরাত এক করে গড়ে তুলেছেন দশভুজার প্রতিমা। ১ আগস্ট নুরুদ্দিন প্রতিমা তৈরির কাজ শুরু করেন।

দুর্গাপ্রতিমা এত উঁচু হলেও উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, পূজা হবে মাটির তৈরি ছোট প্রতিমার। বড়টি শুধু দর্শকদের দেখার জন্য।

কারুশিল্পী নুরুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আমি একজন শিল্পী। শিল্পই আমার ধর্ম।’  তিনি জানান, এই প্রতিমা তৈরিতে হাজার পাঁচেক বাঁশ লেগেছে। খরচ ১২ লাখ রুপি বলে তাঁর অনুমান।

আসামে প্রচুর বাঁশ পাওয়া যায়। এখানকার বাঁশ ও বেতশিল্প বেশ উন্নত। নুরুদ্দিন নিজেও বাঁশ-বেতের কাজে বেশ দক্ষ। কারুশিল্পী হিসেবে আগেই বহু সম্মানে ভূষিত। ১৯৭৫ সাল থেকে তিনি দুর্গাপ্রতিমা বানাচ্ছেন। এখন পর্যন্ত শ দুয়েক প্রতিমা বানিয়েছেন তিনি। নুরুদ্দিন আরও বলেন, শুধু বাঁশ দিয়েই ১০১ ফুটের প্রতিমা দাঁড় করানো হয়েছে। কোনো ধাতুর ব্যবহার করা হয়নি। নুরুদ্দিনের সঙ্গে তাঁর ছেলে দীপ আহমেদও কাজ করেছেন।

পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় এর আগে ৮৩ ফুট উঁচু দুর্গাপ্রতিমা বানানো হয়েছিল। সেটি তৈরি হয়েছিল লোহার কাঠামোর ওপর। বাংলাদেশে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গত বছর নির্মাণ করা হয়েছিল ৭১ ফুট

পাঁচমিশালি

Prothom Alo

থেকে সংকন

♣♣♣লক্ষী দেবী সম্পকে জানুন অন্যকে জানুন:

লক্ষ্মী (সংস্কৃত: लक्ष्मी) হলেন একজন হিন্দু দেবী। তিনি ধনসম্পদ, আধ্যাত্মিক সম্পদ, সৌভাগ্য ও সৌন্দর্যের দেবী। তিনি বিষ্ণুর পত্নী। তাঁর অপর নামমহালক্ষ্মী[১] জৈন স্মারকগুলিতেও লক্ষ্মীর ছবি দেখা যায়। লক্ষ্মীর বাহন পেঁচা।

লক্ষ্মী
Ravi Varma-Lakshmi.jpg

রাজা রবি বর্মার আঁকা লক্ষ্মী
দেবনাগরী लक्ष्मी
সংস্কৃতলিপ্যন্তর lakṣmī
অন্তর্ভুক্তি মহাশক্তি
আবাস বৈকুণ্ঠ
সঙ্গী বিষ্ণু
বাহন হাতি, পেঁচা

লক্ষ্মী ছয়টি বিশেষ গুণের দেবী। তিনি বিষ্ণুর শক্তিরও উৎস। বিষ্ণু রামকৃষ্ণ রূপে অবতার গ্রহণ করলে, লক্ষ্মী সীতারাধা রূপে তাঁদের সঙ্গিনী হন।[২][৩][৪]কৃষ্ণের দুই স্ত্রী রুক্মিনীসত্যভামাও লক্ষ্মীর অবতার রূপে কল্পিত হন।[৫]

লক্ষ্মীর পূজা অধিকাংশ হিন্দুর গৃহেই অনুষ্ঠিত হয়।দীপাবলিকোজাগরী পূর্ণিমার দিন তাঁর বিশেষ পূজা হয়। বাঙালি হিন্দুরা প্রতি বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীপূজা করে থাকেন।

ধ্যানমন্ত্র সম্পাদনা

ওঁ পাশাক্ষমালিকাম্ভোজ-সৃণিভির্ষাম্য-সৌম্যয়োঃ।
পদ্মাসনাস্থাং ধ্যায়েচ্চ শ্রিয়ং ত্রৈলোক্যমাতরম্।।
গৌরবর্ণাং সুরুপাঞ্চ সর্বলঙ্কার-ভূষিতাম্।
রৌক্মপদ্ম-ব্যগ্রকরাং বরদাং দক্ষিণেন তু।।

অর্থঃ দক্ষিণহস্তে পাশ, অক্ষমালা এবং বামহস্তে পদ্ম ও অঙ্কুশধারিণী, পদ্মাসনে উপবিষ্টা, শ্রীরূপা, ত্রিলোকমাতা, গৌরবর্ণা, সুন্দরী, সর্বালঙ্কারভূষিতা, ব্যগ্রহস্তে স্বর্ণপদ্মধারিণী এবং দক্ষিণহস্তে বরদাত্রী দেবীকে ধ্যান করি।

পৌরাণিক ও লৌকিক গল্প সম্পাদনা

ব্রতকথা সম্পাদনা

লক্ষ্মীকে নিয়ে বাংলার জনসমাজে বিভিন্ন জনপ্রিয় গল্প প্রচলিত আছে। এই গল্পগুলি পাঁচালির আকারে লক্ষ্মীপূজার দিন পাঠ করা হয়। লক্ষ্মীর ব্রতকথাগুলির মধ্যে “বৃহস্পতিবারের ব্রতকথা” সবচেয়ে জনপ্রিয়। এছাড়াও “বারোমাসের পাঁচালি”-তেও লক্ষ্মীকে নিয়ে অনেক লৌকিক গল্পের উল্লেখ পাওয়া যায়।

বৃহস্পতিবারের ব্রতকথা সম্পাদনা

পেচকবাহিনী লক্ষ্মী

বাঙালি হিন্দুরা প্রতি বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীর সাপ্তাহিক পূজা করে থাকেন। এই পূজা সাধারণত বাড়ির সধবা স্ত্রীলোকেরাই করে থাকেন। “বৃহস্পতিবারের ব্রতকথা”-য় এই বৃহস্পতিবারের লক্ষ্মীব্রত ও পূজা প্রচলন সম্পর্কে একটি যে লৌকিক গল্পটি রয়েছে, তা এইরকম: এক দোলপূর্ণিমার রাতে নারদ বৈকুণ্ঠেলক্ষ্মী ও নারায়ণের কাছে গিয়ে মর্ত্যের অধিবাসীদের নানা দুঃখকষ্টের কথা বললেন। লক্ষ্মী মানুষের নিজেদের কুকর্মের ফলকেই এই সব দুঃখের কারণ বলে চিহ্নিত করলেন।. কিন্তু নারদের অনুরোধে মানুষের দুঃখকষ্ট ঘোচাতে তিনি মর্ত্যলোকে লক্ষ্মীব্রত প্রচার করতে এলেন। অবন্তী নগরে ধনেশ্বর নামে এক ধনী বণিক বাস করতেন। তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর ছেলেদের মধ্যে বিষয়সম্পত্তি ও অন্যান্য ব্যাপার নিয়ে ঝগড়া চলছিল। ধনেশ্বরের বিধবা পত্নী সেই ঝগড়ায় অতিষ্ঠ হয়ে বনে আত্মহত্যা করতে এসেছিলেন। লক্ষ্মী তাঁকে লক্ষ্মীব্রত করার উপদেশ দিয়ে ফেরত পাঠালেন। ধনেশ্বরের স্ত্রী নিজের পুত্রবধূদের দিয়ে লক্ষ্মীব্রত করাতেই তাঁদের সংসারের সব দুঃখ ঘুচে গেল। ফলে লক্ষ্মীব্রতের কথা অবন্তী নগরে প্রচারিত হয়ে গেল। একদিন অবন্তীর সধবারা লক্ষ্মীপূজা করছেন, এমন সময় শ্রীনগরের এক যুবক বণিক এসে তাদের ব্রতকে ব্যঙ্গ করল। ফলে লক্ষ্মী তার উপর কুপিত হলেন। সেও সমস্ত ধনসম্পত্তি হারিয়ে অবন্তী নগরে ভিক্ষা করতে লাগল। তারপর একদিন সধবাদের লক্ষ্মীপূজা করতে দেখে সে অনুতপ্ত হয়ে লক্ষ্মীর কাছে ক্ষমা চাইল। লক্ষ্মী তাকে ক্ষমা করে তার সব ধনসম্পত্তি ফিরিয়ে দিলেন। এইভাবে সমাজে লক্ষ্মীব্রত প্রচলিত হল।[৬]

আজ লক্ষীপূজা। সবাইকে লক্ষী পূজার প্রীতি, শুভেচ্ছা ও প্রমাণ।

পূজা শেষ, কিন্তু পূজার আনন্দের শেষ নেই,বার মাসে তের পার্বণ ঃ

IMG_20170928_221658

@সবুজবাগ,শ্রীমঙ্গল দেবী দূর্গা পূজা।IMG_20170928_221721

@পূজার আয়োজন করে সবুজবাগ যুব দূর্গা পূজা উদযাপন পরিষদ।

IMG_20170928_221651

আজ দশমী বিহিত পূজা,শেষ হল দূর্গা পূজাঃ

 

@আজ শেষ হল দশমী বিহিত পূজা। আজ দেবী দূর্গা মত্যলোক থেকে দেবলোকে যাবেন।আর আমাদের একটি বছর অপেক্ষা করতে দূর্গা পূজার জন্য।kq4cbb8ce10f05f1-52206581-11-1476163904